আ ন ম হাসান:

আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া শুভেচ্ছা উপহার বিতরণ র্কাযক্রম শুরু করেছে মহেশখালী উপজেলা প্রশাসন।

বুধবার ২৮ এপ্রিল এই কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব মাহফুজুর রহমান।

জানা গেছে, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে ও কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় করোনাকালীন সময়ে অসহায় দুঃস্থ ও কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের জন্য মহেশখালী উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ২০ লাখ টাকা, মহেশখালী পৌরসভার জন্য ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা বরাদ্ধ দিয়েছে। প্রতি ইউনিয়ন পাবে ২লাখ ৫০ হাজার টাকা করে । এছাড়াও ঈদের ভিজিএফ থেকে মহেশখালী ৮ ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার জন্য ২৫৯২১টি পরিবারের জন্য ৪৫০/-(চারশত পঞ্চাশ টাকা) হারে মোট-১,১৬,৬৪,৪৫০/- (এক কোটি ষোল লক্ষ চৌষট্টি হাজার চারশত পঞ্চাশ টাকা) বরাদ্ধ দিয়েছে সরকার। উক্ত বরাদ্ধ থেকে প্রতিটি ব্যক্তি পাবেন নগদ ৪৫০ টাকা হারে। সকল উপজেলায় ২৮ এপ্রিল থেকে শুভেচ্ছা উপহার বিতরণ করার নির্দেশ দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

২৮ এপ্রিল পৌরসভার ৫ নং ওর্য়াড ও ২৯ এপ্রিল ১নং ওয়ার্ডে ত্রাণ বিতরন করেন পৌর মেয়র মকছুদ মিয়া সহ আগত অতিথিরা। এসময় সাধারন মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার উপর গুরুত্বারোপ করা হয়।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ রাশেদুল ইসলাম বলেন, করোনা কালে কর্মহারা বিভিন্ন পেশার শ্রমিকসহ সমাজের অস্বচ্ছল ব্যক্তিরা এই তালিকায় অগ্রাধিকার পাবেন। বৃহস্পতিবার থেকে উপজেলার সকল ইউনিয়নে বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে ৷

তিনি আরও বলেন, মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আশেক উল্লাহ রফিক বর্তমানে অসুস্থ এবং তিনি ঢাকায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন। মহেশখালী উপজেলার দুর্দশাগ্রস্থ পরিবারকে সহযোগীতা করার জন্য প্রশাসনের সকল স্তরে সব সময় দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন। তাঁর পরামর্শে সমস্ত উপজেলায় আরো ত্রাণ কার্যক্রম বৃদ্ধির চেস্টা অব্যাহত রয়েছে, এছাড়া মাননীয় সংসদ সদস্য মহোদয় সমাজের স্বচ্ছল ব্যাক্তিদেরকে দেশের এই দুর্যোগকালীন সময়ে অসহায় মানুষদের সহায়তা প্রদান করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

মহেশখালী উপজেলার সাধারন খেটে খাওয়া মানুষ ও করোনাকালীন সময়ে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ কার্যক্রমের আনন্দিত ও তাঁর জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করছেন এবং একইসাথে অত্র উপজেলার মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব আশেক উল্লাহ রফিক মহোদয়ের দ্রুত রোগমুক্তির জন্য মহান আল্লাহর দরবারে দোয়া করছেন।