আন্তর্জাতিক ডেস্ক:-

ভারতের তেলেঙ্গানার রাজ্যের একটি কুয়ো থেকে যে ৯ জনের মরাদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এই ৯ জনকেই হত্যা করা হয়েছে একজনের খুন চাপা দিতে। সোমবার হত্যাকাণ্ডে অভিযোগে সঞ্জয়কুমার যাদব নামের এক যুবক গ্রেফতার হয়েছে। তথ্যসূত্র: ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি;

হায়দরাবাদের উপকণ্ঠে গোরেকুন্টা গ্রামের একটি কুয়োয় বৃহস্পতিবার ৪ জনের লাশ ও পরের দিস শুক্রবার আরো ৫ জন লাশ উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত লাশগুলোর মধ্যে ছিল একই পরিবারের মকসুদ, তার স্ত্রী নিশা, দুই ছেলে সোহেল ও শাবাদ, মেয়ে বুশরা খাতুন এবং তিন বছরের নাতি শাকিল। আর বাকি লাশগুলো ছিল ত্রিপুরার বাসিন্দা শাকিল আহমেদ, বিহারের শ্রীরাম ও শ্যাম নামের আরও তিন শ্রমিক।

লাশ উদ্ধারের পর প্রথম দিকে পুলিশ ধারণা করে যে, বেতন না পেয়ে একই পরিবারের ৬ জনসহ মোট ৯ জন আত্মহত্যা করেছেন। কারণ নিহতদের ৯ জনের মধ্যে ৭ জনই এক ব্যাগ কারখানায় কাজ করতেন।

কিন্তু লাশ উদ্ধারের তিনদিন পর তাদের মৃত্যুর রহস্য বের করেন তদন্তকারীরা।

অভিযুক্ত যুবক খুনের কথা স্বীকার করে জানায়, গত মার্চে এক নারীর হত্যাকাণ্ডকে চাপা দিতেই এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। খাবারে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে ৯ জনকে অচেতন করে দেহগুলো কুয়োয় ফেলে দেয় সে। ওই নারীর সঙ্গে আত্মীয়তা ছিল এই পরিবারের। নিহত মকসুদের স্ত্রী সঞ্জয়কে প্রায়ই নিখোঁজ নারীর বিষয়ে পুলিশকে জানাবেন বলে হুমকি দিতেন। আর তাই বিহার থেকে আগত সঞ্জয় এই খুনের পরিকল্পনা করা শুরু করে।