আ ন ম হাসান:

মহেশখালীতে সংবাদ সম্মেলন করেছে মহেশখালী জাগ্রত ছাত্র সমাজ নামের একটি সংগঠন। শুক্রবার (৯এপ্রিল) বিকেল ৪টায় উপজেলা দীঘির পাড়ে সাংবাদিকদের অস্থায়ী কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সভাপতি ফজলে আজিম মোঃ ছিবগাতুল্লাহ বলেন, মহেশখালীর বিভিন্ন জায়গায় আওয়ামিলীগ অফিস, ইউএনও অফিস, থানা সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে হেফাজতের কর্মীরা হামলা চালিয়ে তান্ডব চালায়। উক্ত ঘটনায় মোট তিনটি মামলার একটি মামলার বাদী হয়েছে কালারমারছড়ার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ।

ঐ মামলায় ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে এজাহারে ৭নং এ উল্লেখিত রিয়াজ মাহমুদ এবং ১০নং এ উল্লেখিত রিদোয়ান মোস্তফাকে আসামী করা হয়। অথচ ঘটনার দিন হামলার সময়ে তারা চট্টগ্রাম শহরে অবস্থান করছিল। তার প্রমান স্বরূপ একটি সিসিটিভি ফুটেজ আমাদের হাতে আছে।

ফুটেজটি ইতিমধ্যে মহেশখালী থানার ওসি, তদন্ত ওসি ও আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দদের দেয়া হয়েছে। তারাও তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন। মূল ঘটনা হচ্ছে, আমাদের সংগঠনটি দীর্ঘদিন ধরে এলাকার সাধারণ মানুষের স্বার্থে কাজ করে আসছে। তাই শত্রুতামূলক ভাবে প্রশাসনকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংগঠনের দুইজন সদস্যকে মামলায় আসামী করেছে একটি কুচক্রী মহল।

তিনি আরো বলেন, সমাজের অসংগতি দুর করতে ছাত্রদের নিয়ে সংগঠনটি তৈরী করা হয়েছে। ইতিমধ্যে অনেক কাজ করেছি সাধারণ মানুষের জন্যে। তাই ইর্ষান্বিত হয়ে একটি মহল দীর্ঘদিন ধরে সংগঠণের সদস্যদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিচ্ছে।

হেফাজত ইস্যুতে সুযোগ পেয়ে সংগঠনের সদস্যদের মিথ্যা মামলায় জড়িয়েছে। এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে মামলা থেকে তাদের দুইজনের নাম প্রত্যাহারের অনুরোধ জানান সভাপতি ফজলে আজিম মোঃ ছিবগাতুল্লাহ।