নিউজ ডেস্ক::
গতকাল ১০/০৭/২০২০ তারিখে অনলাইন নিউজ পোর্টাল কক্সবাজার নিউজ ডটকম ও জয়যাত্রা টেলিভিশনে “মহেশখালীতে একমাত্র চলাচলের পথ বন্ধের অভিযোগ এক মাওলানার বিরুদ্ধে” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ।

উপরোক্ত শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাদে আমার বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। আমি মাওলানা রিদওয়ানুল হক মিথ্যা, বানোয়াট ও অসত্য সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

দীর্ঘ ৫০-৬০ বছর ধরে ধইল্যা ছরি যাতায়াতের রাস্তাটি ছিল হাসান আলী গং এর সীমানা পাশ দিয়ে বালা গুইন্যা পাড়া রাস্তা পর্যন্ত। সেখান থেকে সোজা প্রধান সড়কে এসে মিলিত হয় এবং সেই রাস্তাটি ছিল ১২ নাম্বার পাহাড়ি জমি জায়গার উপর। রাস্তার উভয় পাশের লোকেরা জোর দখল করে ভোগ করে আসছে দীর্ঘদিন যাবৎ।

আমার সীমানার বাঁশের বেড়া নড়বড়ে হয়ে যাওয়ায় মাঝেমধ্যে তারা আমার পিতৃয় খতিয়ানী জায়গার উপর দিয়ে গোপনে যাতায়াত করতো। এখন আমার পরিবারের নিরাপত্তা ও আমার বাড়ি ভিটা রক্ষার স্বার্থে আমার সীমানায় ওয়াল দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। এমন সময়ে একশ্রেণীর কুচক্রী মহল আমাকে এবং আমার পরিবারকে হেনস্থা করা ও কোণঠাসা করে রাখার উদ্দেশ্যে উঠে পড়ে লেগেছে।

আমার বিরুদ্ধে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে যে, “রাস্তা দিয়ে চলাচল করলে হাত পা কেটে নেওয়া হবে” এমন সংবাদটি ঢালাওভাবে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

আমার সীমানার পূর্ব পাশে যারা বসবাস করে তাদের রাস্তা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমি আন্তরিকভাবে দুঃখপ্রকাশ করছি। আমি চাই মানবতার দৃষ্টিতে তাদের যাতায়াত ও চলাচলের জন্য সেই পূর্ব পাশের যে রাস্তাটি আমার পিতা মরহুম মাওলানা মোজাহেরুল হক সাহেবের সার্বিক সহযোগিতা ও তত্ত্বাবধানে হয়েছিল সে রাস্তা ফিরে পাওয়ার জন্য অত্র এলাকাবাসী এবং প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
আমাকে ও আমার পরিবার এবং সেই ঐতিহ্যবাহী মহেশখালী উপজেলার ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান জামিয়া আশরাফিয়া মাদ্রাসার বিরুদ্ধে যে বা যারা অপপ্রচার চালাচ্ছে আমি তাদের বিরুদ্ধে অত্র এলাকার সুশীল সমাজ এবং প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

প্রতিবাদকারী-
মাওলানা মুফতি রিদওয়ানুল হক
পরিচালক, জামিয়া আশরাফিয়া ঝাপুয়া (মাদ্রাসা) দক্ষিণ ঝাপুয়া, কালারমারছড়া, মহেশখালী কক্সবাজার।