মিছবাহ উদ্দীন আরজু, (মহেশখালী প্রতিনিধি):

ত্রি-চক্রযান টমটমের ধাক্কায় কালারমারছড়া আল আমিন মডেল একাডেমীর নার্সারির ছাত্র রাফসান (৮) গুরুতর আহত। সে কালারমারছড়া ইউপিস্থ ৯নং ওয়ার্ড মিজ্জির পাড়া গ্রামের দিনমজুর মোঃ নছিমের ছেলে। তাঁর মাতার নাম কুহিনূর আক্তার।

জানা যায়, ২৩ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) অনুমানিক ১১.৩০ টায় স্কুল শেষে বাড়ি ফেরার পথে অপর দিক থেকে বেপরোয়াভাবে আসা টমটমটি সজোরে ধাক্কা দেয় রাফসানকে। এতে মাথায় এবং ঠোঁটের নিচে মারাত্মক জখম হয়। স্থানিয়রা এসে ঘটানাস্থল থেকে আহতবস্থায় তাকে উদ্ধার করে স্থানিয় কালারমারছড়া ইউনিয়ন উপ-স্ব্যাস্থ্য কেন্দ্রে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে চকরিয়া জমজম হাসপাতালে প্রেরণ করে।

স্থানিয়রা অভিযোগ করেন, রাস্তার স্পীড ব্রেকার না থাকায় প্রতিনিয়ত ঘটছে অহরহ দুর্ঘটনা। জনতা বাজার টু গোরকঘাটা প্রধান সড়কে স্পীড ব্রেকারই স্থানিয়দের প্রধান দাবি।

তারা আরও অভিযোগ করে বলেন- কমবয়সী,অদক্ষ,লাইসেন্সবিহীন চালকদের বেপরোয়া টমটম কেঁড়ে নিচ্ছে ছোট,বড়,বৃদ্ধার জীবন। আজ স্কুল পড়ুয়া ছাত্র, কাল বয়স্ক মহিলা এভাবে ঘটছে দুর্ঘটনা। হন্তারক টমটমের লাগাম টানতে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেনা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

এ ব্যাপরে স্থানীয় সাবেক এমইউপি নুরুল ইসলাম জানান- স্পীড ব্রেকার না থাকায় পূর্বের তুলনায় বাড়ছে রোড এক্সিডেন্ট। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বাজারের প্রবেশমুখ এবং প্রতি মোড়ে মোড়ে স্পীড ব্রেকার থাকলে অনেকটা এড়ানো যাবে জীবন হন্তারকের মতো এক্সিডেন্ট।

আল আমিন একাডেমীর প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ ইউনুস জানান- প্রধান সড়কের হাঁটাচলার জায়গায় রাখা হচ্ছে বাঁশ,গোবর। যার কারণে ছাত্র ছাত্রীদের হাঁটাচলায় বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে। দ্রুত প্রশাসনকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানান তিনি।