দ্বীপ নিউজ ডেস্ক:-
মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ী,হোয়ানক, কালারমারছড়া ও ধলঘাটা ইউনিয়নে টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে প্রায় আট শতাধিক বসতবাড়ি পানির নিচে তলিয়ে গেছে। ১৭ই জুন বুধবার ভোরে শুরু হওয়া প্রবল বর্ষণের ফলে
মাতারবাড়ী:-
মাতারবাড়ী ইউনিয়নের নতুন বাজার,সাতঘর পাড়া,লাইল্যাঘোনা, সাইট পাড়া, বিল পাড়া, উত্তর ও দক্ষিণ রাজঘাট,ফুলজান মোরা,দক্ষিন মগডেইল,সাইরার ডেইল গ্রামের ৫ শতাধিক বাড়ীতে পানিতে তলিয়ে গেছে।
মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন:-বর্ষা মৌসুমে অতি ভারী বৃষ্টি বর্ষণে সিএনজি ষ্টেশন,সাত পাড়া লাইল্যাঘোনা প্রায় ২০০ মত ঘর বাড়ী পানিতে প্লাবিত হয়, রাস্তাঘাট সহ ডুবে আছে পানিতে,আগে সিএনজি ষ্টেশন দিয়ে ৩ এলাকার পানি নিষ্কাশন হত,অব্যবস্থাপনা সহ অপরিকল্পনার ভিত্তিতে নতুন স্থাপনাসহ বিভিন্ন দালান মার্কেট গড়ে তুলায় পানি চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়।
আগে যে ব্যবস্থাপনায় পানি নিষ্কাষন হত তার উপর দিয়ে ড্রেনের ব্যবস্থা না করে মার্কেট গড়ে তুলেন শাহ আলম মার্কেট,হাজী ইসমাইল মার্কেট, লেদু সদাগর এর মার্কেট, হাজী লেদু সদাগর এর মার্কেট।
যার ফলে পূর্বের ন্যায় পানি নিষ্কাশনে ব্যবস্থা বন্ধ হওয়া এই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি।যথা সম্ভব এই জলবদ্ধতা দূর করণ সহ পানিতে বন্ধি শত পরিবারকে রক্ষার্থে মাননীয় সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিকের নির্দেশে পানি দ্রুত নিষ্কাশনের ব্যবস্থা নিচ্ছি।এবং ক্ষয়ক্ষিত পরিবারের মাঝে খাদ্য সমাগ্রী বিতরণের ব্যবস্থা নিচ্ছি।
কালারমারছড়া:-
কালারমারছড়া ইউনিয়নের ছামিরা ঘোনা ও হোয়ানক ইউনিয়নের বড় ছড়া ব্রিজ এলাকার অধিকাংশ বাড়ি ঘরে পানি উঠেছে।
কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারমান:-তারেক বিন ওসমান শরীফ জানায়:অতি বৃষ্টি বর্ষনে যেসব ঘর বাড়ী প্লাবিত হয়েছে তা অতি দ্রুত নিষ্কাসনের ব্যবস্থা নিচ্ছি।
ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বসতবাড়িতে পানি উঠার ফলে মুরগী, গরু-ছাগল, আসবাবপত্র, শিশুদের অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। টানা বর্ষনে জনতাবাজার-শাপলাপুর গোরকঘাটা সড়ক ও জনতাবাজার কালারমারছড়া -গোরকঘাটা সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে। বাজারের রাস্তাঘাট, দোকানপাট পানির নিচে তলিয়ে গেছে।
ধলঘাটা:-
ধলঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য নবীর হোসাইন বলেন, মাতারবাড়ী কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পের সীমান্তবর্তী ধলঘাটা নাছির মোহাম্মদ ডেইল ১নং ওয়ার্ড গ্রামের  শতাধিক ঘর-বাড়ি বৃষ্টির পানি ডুকে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।
শাপলাপুর:-
পাহাড়ী ঢলে শাপলাপুরে মিঠাছড়ি বাজার সংলগ্ন কালভার্ট ভেঙে গোরাকঘাটার সাথে বদরখালীর সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।
মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাস্টার মোহাম্মদ উল্লাহ বলেন:-পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা না থাকার পাশাপাশি সুইচ গেইট বন্ধ থাকায় বৃষ্টির পানি চলাচল করতে না পারায় আমার এলাকার ৫ শতাধিক ঘর পানিতে ভাসছে। এদের অবস্থা দেখলে খুবই দুঃখ লাগে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট প্রশাসন একটু নজর দিবেন।
মহেশখালী উপজেলা নিবার্হী অফিসার মোহাম্মদ জামিরুল ইসলাম বলেন, বন্যাকবলিত এলাকার সবকিছুর খবর রাখা হচ্ছে। খুব তাড়াতাড়ি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।