দ্বীপ নিউজ ডেস্ক:

মহেশখালী দ্বীপ উপজেলার মাতারবাড়ী ইউনিয়নের সর্ববৃহৎ কবরস্থান হলো ‘মাতারবাড়ী মজিদিয়া মাদ্রসা’স্থ কবরস্থানটি। অত্র এলাকার তরুণ যুবক, উদ্যোক্তাদের সমন্বয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ অযত্নে পড়ে থাকা উক্ত কবরস্থানটির পরিকল্পনা মাফিক উন্নয়নের হাল ধরেছেন মাতারবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জিএম ছমি উদ্দিন।

কবরস্থান উন্নতিকরণ কমিঠির সূত্রে জানা যায়, ঐতিহ্যবাহী মাতারবাড়ী মজিদিয়া কেন্দ্রীয় কবরস্থানটি দীর্ঘদিন অযত্ন ও অবহেলায় পড়ে থাকে। এছাড়া ব্যক্তিমালিকানাধীন অপরিকল্পিত বাঁশ-গাছ রোপন করায় কবরস্থানের দুই-তৃতীয়া়ংশ জায়গা কবর দেওয়ার অনুপযোগী হয়ে পড়ে,এবং পবিত্র কবরস্থানটি চতুঃপার্শ্বে ময়লা ফেলার কারণে ডাস্টবিনে পরিণত হওয়ার ফলে কবরস্থানের অভ্যন্তরে জুয়া খেলা, মাদক সেবন, নজির আহমদ মাঝি হত্যাকান্ড সহ নানা অপরাধ সংঘটিত হয়ে আসছিল। একপর্যায়ে অনিরাপদ স্থানে পরিণত হওয়া শুরু করে।

 

এমতাবস্থায় অত্র এলাকার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ, তরুণ ব্যবসায়ী, এবং তরুণ উদ্যোক্তাদের সমন্বয়ে উক্ত কবরস্থান উন্নতিকরণ সহ নানা পরিকল্পনা হাতে নেয় আওয়ামী সভাপতি আলহাজ্ব জিএম ছমি উদ্দিন। বিগত আগষ্ট মাস থেকেই কবরস্থানের চতুঃপার্শ্বে উঁচু দেওয়াল নির্মাণ, কবরস্থান জিয়ারতের জন্যে ভিতরে চারপাশে ৬/৭ ফিটের পাকা রাস্তা, মাঝামাঝি স্থানে ২/৩ ফুটের ৩/৪ টা পাকা রাস্তা নির্মাণ, বিভিন্ন গাছগাছালি নিয়ে বাগান নির্মাণ, বিশ্রামাগার নির্মাণ, রাত-দিন ২৪ ঘন্টা বৈদ্যুতিক আলোর আওতাভুক্ত করণ সহ নানা পরিকল্পনায় উন্নতিকরণে কাজ চলমান।

এব্যাপারে মাতারবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জিএম ছমি জানায়, উক্ত কবরস্থানটি দীর্ঘদিন অযত্নে রয়েছিল যারকারণে ২০/৩০ জন তরুণদের নিয়ে আমরা একটি পরিচালনা কমিঠি গঠন পূর্বক উক্ত কাজ শুরু করি। উক্ত কবরস্থান সংস্কার কাজ সামাজিক দায়িত্ব থেকে করা।

তিনি আরো জানায়, মহেশখালী উপজেলার সর্বচেয়ে সুন্দর পরিকল্পিত কবরস্থান হতে যাচ্ছে মাতারবাড়ী মজিদিয়া মাদ্রাসা’স্থ কবরস্থানটি। আমি আশাবাদী এমন সৌন্দর্যময় কবরস্থান মহেশখালীতে এখনো নেই, আমাদের মজিদিয়ার টা এই প্রথম হতে যাচ্ছে। একপর্যায়ে তিনি সকল তরুণদের প্রতি এধরনের সামাজিক কাজে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।