দ্বীপ নিউজ ডেস্ক:

মহেশখালীর মাতারবাড়ীতে কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পে জমি অধিগ্রহণের মূল্য পরিশোধে এনজিও কতৃক প্রতি চেকের বিপরীতে ২লক্ষ ২০ হাজার টাকা পূনরায় চালু এবং বাকি থাকা জমির মূল্য পরিশোধ করে দেওয়ার দাবিতে মানববন্ধন করেছে ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক ও শ্রমিকরা।

মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) সকালে মাতারবাড়ী সিএনজি স্টেশনে প্রায় শতাধিক ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক ও শ্রমিকদের উপস্থিতিতে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে ক্ষতিগ্রস্তরা প্রকল্পে জমিদাতা যেসকল মালিকরা এখনো জমির মূল্য বুঝে পায়নি তাদের মূল্য পরিশোধ ও পূর্বের ন্যায় এনজিও কতৃক চেকের বিপরীতে ২ লক্ষ বিশ হাজার টাকা পূনরায় চালু করার দাবি জানান।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাষ্টার মোহাম্মদ উল্লাহ, মাতারবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম আবু হায়দার, বশির আহমদ, কাউসার সিকদার, তাঁতীলীগ সভাপতি আজিজুল হক বাদশা, মাতারবাড়ী ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি শওকত ইকবাল মুরাদ, মাতারবাড়ী ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাবেক সভাপতি ওয়ালিদ চৌধুরী, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগে সদস্য আব্দুর রহিম, মহেশখালী উপজেলা, ডাক্তার আতিকুর রহমান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল খালেক সিকদার, ছাত্রনেতা সামুন উদ্দিন শাওন, যুবনেতা বাছেম উদ্দিন, আনছারুল করিম, আব্দু জাব্বার, আমান উল্লাহ, মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, আজহারুল ইসলাম হোবাইব, মোহাম্মদ আলী নয়ন, সাইফুল ইসলাম, আব্দুল খালেক, আব্দুল হামিদ সহ ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক ও শ্রমিকবৃন্দ।

উক্ত মানববন্ধনে উপস্থিত স্থানীয় অধিকাংশ নেতৃবৃন্দ তাঁদের বক্তব্যে মাতারবাড়ী কয়লাবিদ্যুৎ কতৃপক্ষ কতৃক পূণরায় ২ লাখ ২০ টাকার বন্ধ করা ক্ষতিপূরণ পূণরায় চালু করার দাবি তোলেন এবং মাতারবাড়ীর জমির মালিকদের সুবিধার্তে ভিন্ন উপজেলা থেকে ড্রপ অফিস মাতারবাড়ীতে নিয়ে আসার জোর দাবি জানান। প্রকল্পের শান্তি বজায়ের স্বার্থে মাতারবাড়ীর স্থানীয় জমির মালিকদের তাঁদের ন্যায্য ক্ষতিপূরণ কোন বাধাবিপত্তি ছাড়া প্রদানের কথা বলেন। অন্যথায়, মাতারবাড়ীর জমির মালিকরা আরো বিশাল মানববন্ধনের ডাক দেওয়ার কথা তোলে ধরেন।