নিজস্ব প্রতিবেদক:

মহেশখালী উপজেলায় বড় মহেশখালী দেবেঙ্গাপাড়ায় মাদক কারবার ও মাদককের বিরুদ্ধে কথা বলায় মারধরের শিকার হয়েছে স্বর্গীয় রঘু নাথ দে এর ৫ নং ওয়ার্ডের আওয়ামিলীগ সভাপতি ও শহিদ পরিবারের সন্তান নেপাল কান্তি দে।

শনিবার সকাল ৮ ঘটিকার সময় দেবাঙ্গ পাড়া বাজারে যাওয়ার পথে পথরোধ করে মারধর করেছে  মৃত মোহাম্মদ সিদ্দিকের ছেলে মাদক কারবারিদের সহযোগিতাকারী ও হত্যা মামলাসহ বহু মামলার আসামী সালাহ উদ্দিন।   স্থানীয় বাসিন্দারা নেপাল কান্তি দে কে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা করে বাড়ি পৌঁছে দেয়।

উল্লেখ্য যে, মাদক কারবারী ও মাদক সেবনকারী কার্যকলাপে বেড়ে যাওয়ায় এলাকার পরিবেশ বিনষ্ট হওয়ার এলাকার সচেতন মহল ও স্থানীয় বাসিন্দাদের নেতৃত্বে মাদকের বিরোদ্ধে গত ১/৯/২১ তারিখ একটি সচেতনতা মূলক বৈঠক অনুষ্ঠিত  হয় এবং এলাকাবাসীর সহযোগিতায় গত ২/৯/২১ তারিখ মাদকসহ দুইজন মাদক কারবারি  পুলিশের হাতে সোপর্দ হয়। এই ঘটনার জের ধরে  ০৪/০৯/২০২১ তারিখ উক্ত ঘটনা ঘটায় বলে স্থানীয় বাসিন্দারা অভিযোগ করেন।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী নেপাল কান্তি দে জানান, সকালে দেবাঙ্গ পাড়া বাজারে পৌঁছলে সালাহ উদ্দিন আমাকে গাল মন্দ করে মারধর করে, সামাজিকভাবে হেয় করে। এলাকার হিন্দু, মুসলিম সবার সাথে মাদকের বিরুদ্ধে কথা বলায় আমাকে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে মারধর করেছ। উপস্থিত জনসাধারণ আমাকে উদ্ধার করে বাড়ি পৌঁছে দেয়। আমি একজন নির্যাতিত শহিদ পরিবারের সন্তান হয়েও জীবনের নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছি।  আমি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এ ঘটানায় এলাকার সচেতন মহলের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। সেই সাথে তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনায় জড়িত সালাহউদ্দিন ও তার অপকর্মের বিরুদ্ধে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছে এলাকাবাসী।

উল্লেখ্য যে বড় মহেশখালীর দেবাঙ্গাপাড়ার গহীন পাহাড়ে মাদক কারবার ও চোলাই মদ উত্তোলন ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। যা এলাকার স্বাভাবিক পরিবেশ ও যুবসমাজের জন্যে হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।