নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

জাতীয় দৈনিক প্রথম আলোর সিনিয়র সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও পরবর্তীতে গ্রেফতারের ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে করছেন মহেশখালীর সাংবাদিকরা।

মহেশখালী উপজেলার সামনে বাবুদিঘীর পাড়ে বিকাল ৩.০০টায় মহেশখালী প্রেস ক্লাবের আয়োজনে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন মহেশখালী প্রেসক্লাবের সভাপতি আবুল বশর পারভেজ ,সাধারণ সম্পাদক সালামত উল্লাহ, সাংগঠনিক সম্পাদক তারেক আজিজ।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে আরো উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক জয়নাল আবেদীন, আব্দু রাজ্জাক, কবি সাহিত্যিক জাহেদ সরওয়ার, কবি খালেদ মোশারফ খোকন, কবি নিলয় রফিক, সাংবাদিক তারেক আজিজ, এম বশির উল্লাহ, জিকির উল্লাহ জিকু, রমজান আলী, সৈয়দ মুজতাবা আলী, সাহাব উদ্দিন,আমিনুল হক, অসীম দাশ গুপ্ত, আবু বক্কর প্রমুখ।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশের সময় মহেশখালীর সাংবাদিক নেতৃবৃন্দরা এমন ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে রোজিনা ইসলাম যেভাবে হেনস্তার শিকার হয়েছেন, তা অপ্রত্যাশিত। যারা তাকে হেনস্থা করেছে তাদের বিচারের আওতায় আনা উচিত।

প্রেসক্লাব সভাপতি আবুল বশর পারভেজ বলেন, সাংবাদিকতা মহৎ পেশা হবার পরেও তারা ক্ষণে ক্ষণে মিথ্যা মামলা স্বীকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত। আজকে সত্যের জন্য গলা টিপ ধরে নির্যাতন করা হচ্ছে। রোজিনা ইসলাম স্বাস্থ্যখাতের অনিয়ম নিয়ে লিখার কারণে কয়েক ঘন্টা বন্ধি রেখে নির্যাতন করা হয়। এই জন্য আমি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

তারা অবিলম্বে সাংবাদিক রোজিনার মুক্তি দাবি করেন।উল্লেখ্য, পেশাগত দায়িত্ব পালনের জন্য সোমবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে গেলে রোজিনা ইসলামকে সচিবালয়ে পাঁচ ঘণ্টার বেশি সময় আটকে রেখে হেনস্তা করা হয়। একপর্যায়ে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। রাত সাড়ে আটটার দিকে পুলিশ তাঁকে শাহবাগ থানায় নিয়ে যায়। রাত পৌনে ১২টার দিকে পুলিশ জানায়, রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টে মামলা হয়েছে। তাঁকে এই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।