1. dwipnews24.info@gmail.com : Dwip News 24 :
  2. editor@dwipnews24.com : Newsroom :
সেই সময় এখন আর নেই, সেই শিক্ষকরা আছেন তবে অবহেলিত! | দ্বীপ নিউজ
April 15, 2024, 7:19 am
শিরোনাম :
মাতারবাড়ীতে পূর্ব শত্রুতার জেরে রাতের আধাঁরে হামলা ও লুটপাট, আহত একাধিক মাতারবাড়িতে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু, পরিবারের দাবী হত্যা মহাকাশ গবেষণায় মহেশখালীর ১১ শিশু-কিশোরের সফলতা মাতারবাড়ি প্রকল্পের ভিতরে সাংবাদিক রকিয়তকে আটকে রেখে মারধর ও হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন মাতারবাড়ীতে সাংবাদিকদের হাত-পা কেটে সাগরে ভাসিয়ে দেওয়ার হুমকি কক্সবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান রাজাকে বিভিন্ন মহলে অভিনন্দন কক্সবাজার জেলা থেকে বিভাগীয় পর্যায়ে জয়িতা সম্মাননা পেলেন শাহরিন জাহান মহেশখালীতে ভুমিহীন ও ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীর জীবন জীবিকার সুরক্ষার তাগিদে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত কক্সবাজার-২ থেকে ইসলামী ঐক্যজোটের মনোনয়ন পাচ্ছেন সাংবাদিক নেতা মাওলানা ইউনুস মহেশখালীতে তুচ্ছ ঘটনায় নিহত ১, নগদ টাকাসহ ৩০ লক্ষ টাকার মালামাল লুটের অভিযোগ 

সেই সময় এখন আর নেই, সেই শিক্ষকরা আছেন তবে অবহেলিত!

  • আপডেটের সময় : শনিবার, অক্টোবর ৯, ২০২১
  • 385 ভিউ

পাঠক কলাম:

আমাদের শ্রদ্ধেয় শিক্ষাগুরুদের সাথে বাজারে দেখা হবে বলে বাজারে তেমন যেতাম না! আমরা যখন আমাদের শিক্ষকদের বাজারে দেখতে পেতাম চোরের মত পালিয়ে যেতাম! হঠাৎ যখন দর্শন হয়ে যেত কাচুমাচু হয়ে যেতাম,মাথার চুল ধরে ইতস্ততবোধ করে সালাম দিয়ে তড়িঘড়ি করে চলে আসার চেষ্টা করতাম।আমাদের অভিভাবকরা শিক্ষকদের বলতেন পিঠের চামড়া তুলে হাড্ডিগুলো আমাদের দিবেন।শাস্তির ক্ষেত্রে নো কম্প্রোমাইজ!আসলে কি আমাদের শিক্ষকরা মেরে শরীরের চামড়া তুলে ফেলতেন!

সেই সময় এখন আর নেই,সেই শিক্ষকরা আছেন তবে অবহেলিত।

নিয়মিত চুল ও নখ কাটা সহ পরিপাটি পোশাক পরিধান করে বিদ্যালয়ে আসা ছাত্রদের নৈতিক দায়িত্ব। বর্তমানে এমন অবস্থা হয়েগেছে এগুলো কাটার জন্য শিক্ষকদের বলতে হয়।আর যদি বলে পেলেন সেই শিক্ষকরা হেনস্তার শিকার হয়!আমরা যথেষ্ট আধুনিক এবং সভ্য তাই শালীনতা বিবর্জিত স্টাইলিশ চুল ও নখ রাখলে কার কি আসে যায়!আপনি শিক্ষক পাঠদান করবেন,রোল কল করবেন,পরিক্ষা নিবেন,খাতায় নাম্বার দিবেন এসব আপনার কাজ!ছাত্রদের ব্যক্তিগত স্টাইলে হস্তক্ষেপ করবেন কেন!

আসলে কি শিক্ষকরা ছাত্রদের শত্রু!নাকি আদব-কায়দা, ভদ্রতা -নম্রতা ও শিষ্টাচার শেখাতে দু”এক বাক্যে কটু কথা সাথে দু “একটা বেত্রাঘাত করা শত্রুতার পর্য়াযে পড়ে!আহ!এখন তো পাঠদানে বেত রাখা যায় না।

কাজী কাদের নেওয়াজের কবিতা “শিক্ষকের মর্যাদা” সম্পর্কে বাদশাহ আলমগীর যথার্থ বলেছেন, তিনি প্রত্যাশা করেছিলেন তাঁর সন্তান নিজের হাতে শিক্ষাগুরুর পা ধুয়ে দেবেন। তবেই না তাঁর সন্তান নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও দেশ প্রেম নিয়ে দেশের একজন আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে উঠবে। কারণ তিনি উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন,যে ছাত্র তার শিক্ষককে যথাযথ মর্যাদা দিতে জানে না,শিক্ষকের সেবা করতে জানে না,সে কখনো পরিবার, সমাজ ও দেশের উপযোগী মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে পারে না।

কিন্তু বর্তমানে তার উল্টোটা।এমনও ছাত্র আছে শিক্ষক দেখলে সিগারেটের সুখটানের ধোয়া বেড়ে যায়।শার্টের কলার ফুলিয়ে বখাটের মত রাস্তায় দাড়িয়ে থাকে শিক্ষক নিজেই পাশ কেটে চলে যায়।মহিলা শিক্ষিকা হলে মন্তব্যের শেষ নাই। ম্যাডামকে দেখতে এখনো কুমারীর মত লাগে।কারো স্বপ্নের রাণী হয়।ক্লাসে হা করে চেয়ে থাকে ইত্যাদি।যার ফলে আজ শিক্ষকদের মর্যাদা নাই।

ছাত্র শিক্ষকের সম্পর্ক হতে হবে পাত্র ও পানির মতো।পাত্র ছাড়া যেমন পানি সংরক্ষণ সম্ভব নয়,তেমনি শিক্ষক-ছাত্র সুসম্পর্ক ছাড়া জ্ঞানার্জন বিতরণও অসম্ভব। একজন শিক্ষকই শিক্ষার্থীর জ্ঞানার্জনের পেছনে সবচেয়ে বেশি অনুপ্রেরণা জোগায়, স্বপ্ন দেখায়।

জয় হোক আদর্শবান শিক্ষক সমাজের।

রিয়াজ মাহমুদ
ইংরেজি বিভাগ, চট্টগ্রাম কলেজ।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Comments are closed.

এই বিভাগের আরো খবর
© সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত © 2022 dwipnews24.net
Desing & Developed BY ThemeNeed.com
error: Content is protected !!