অনলাইন ডেস্ক:

পবিত্র হজের খুতবা এবার বাংলাসহ ১৪টি ভাষায় সৌদি আরবের সরকারি ওয়েবসাইট থেকে লাইভ সম্প্রচার হবে। শ্রোতার কাছে সংযম ও সহনশীলতার বার্তা পৌঁছে দিতেই এ পদক্ষেপ নিয়েছে সৌদি সরকার। আগামী ৮ জুলাই আরাফাত দিবসে মসজিদে নামিরা থেকে দেয়া হবে হজের খুতবা।

এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম আরব নিউজ।

খবরে বলা হয়, আগামী ৮ জুলাই আরাফাত দিবসে মক্কার মসজিদে নামিরা থেকে দেওয়া হজের খুতবাটি দেশটির সরকারি ওয়েবসাইট থেকে সরাসরি অনুবাদ সম্প্রচার করা হবে। সৌদি কর্তৃপক্ষ হজযাত্রী ও দর্শনার্থীদের সেবা প্রদানের জন্য আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে বিশ্বকে ইসলামের সংযম ও সহনশীলতার বার্তা পৌঁছে দিতে আগ্রহী।

পবিত্র দুই মসজিদের জেনারেল প্রেসিডেন্সি বিভাগের প্রধান শায়খ আবদুর রহমান আল-সুদাইস বলেন, ব্যাপক কর্মসূচির অংশ হিসেবে এই বছর ১৪টি ভাষায় খুতবা অনুবাদের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

[এই বছর আরাফার খুতবা বাংলায় অনুবাদ করবেন মাওলানা আ ফ ম ওয়াহিদুর রহমান। তিনি বাংলাদেশের কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার গর্জনিয়া পূর্ব‌ বোমাঙখিল গ্রামের সন্তান। তার পিতা মরহুম মাওলানা ইসমাইল]

মাওলানা আ.ফ. ম ওয়াহীদুর রহমান প্রথমে হজের খুতবা সম্প্রচার প্রকল্পে বাংলা অনুবাদক হিসেবে ২০২০ সালে মনোনীত হোন। সে বছর তিনি বেশ সুনামের সঙ্গে অনুবাদ করে সাড়া ফেলেছেন। এরপর গেলো বছর সৌদি সরকার ‘আরাফা ও হারামাইন-শরীফাইন খুতবা অনুবাদ প্রকল্প’কে স্থায়ী প্রকল্প হিসেবে অনুমোদন দেয়।

অনুবাদের তালিকায় থাকা ভাষাগুলো হলো- ইংরেজি, বাংলা, ফরাসি, মালয়, তুর্কি, হাউসা, স্প্যানিশ, ভারতীয়, উর্দু, ফার্সি, রুশ, চীনা, সোয়াহিলি এবং তামিল। হজ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় জানায়, অনুবাদের ফলে বিশ্বের ২০ কোটি মানুষের কাছে পৌঁছাবে আরাফাত দিবসের খুতবা।

এবার হজে অংশ নিচ্ছেন দেশি-বিদেশি ১০ লাখের বেশি মুসুল্লি। এদের মধ্যে সাড়ে ৮ লাখই বিদেশি। আর দেড় লাখ সৌদি আরবের নাগরিক। এ বছর ২০ কোটির বেশি লোক লাইভ অনুবাদ শুনবেন বলে আশা করছেন প্রকল্পসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

– আরজু/দ্বীপ নিউজ টোয়েন্টিফোর।