মহেশখালী প্রতিনিধি:

মহেশখালীর হোয়ানকে পৈত্রিক সম্পত্তি নিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় পিতা পুত্র সহ ৪ জন আহত হয়েছে। গত ৯ আগষ্ট উপজেলার হোয়ানক ইউনিয়নের খোরশা পাড়ায় এই ঘটনা ঘটে।

মহেশখালী থানায় দায়ের কৃত এজাহার সুত্রে জানা যায়, খোরশাপাড়ার মৃত হাকিম আলীর পুত্র কামাল পাশা তাদের পৈত্রিক ভাবে ৪৫ কড়া নাল জমি সম্পত্তি পায়। ওই নাল জমিতে র্দীঘদিন ধরে কামাল পাশা গংরা বিভিন্ন প্রজাতির গাছ পালা রোপন করে এবং অবকাঠামো র্নিমাণ করে ভোগ দখলে করে আসছিলো।

সম্প্রতি সময়ে এখই এলাকার ছৈয়দ নুর গং এর লোলপ দৃষ্টি পড়ে ওই জমির উপর ফলে শুরু হয় জমি দখলের প্রতিযোগিতা। এই ঘটনার রেশ ধরে গত ৮ আগষ্ট ছৈয়দ নুর গং স্ব দলবলে কামাল পাশার জমিতে গিয়ে তার বাগানের প্রায় ৬০ হাজার টাকার মতো বাঁশ কেটে নিয়ে যায়। এবিষয় নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে বহু বাকবিন্ডদা সৃষ্টি হয়। পরে গত ৯ আগষ্ট সকাল ১০টায় পুনরায় ছৈয়দ নুরের নেতৃত্বে ফয়সাল মো: সাগর, মো: শাওন, মোসাদ্দেকা বেগম,এলমুন নাহার সহ ১০ /১২ জনের এক দল লাঠিয়াল বাহিনী কামাল পাশার বাগানে প্রবেশ করে বাঁশ কাটতে চাইলে বাগানের মালিক বাধা দেয়। এতে তাদের হামলায় গুরুতর আহত হন কামাল পাশা (৫৫), মহি উদ্দিন (২২), বোরহান(১৫), ও গোল বাহার (৪৩) । স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে মহেশখালী পরে অবস্থার অবনতি হওয়ায় কক্সবাজার সদরে প্রেরন করে। বর্তমানে কামাল পাশা ও তার দুই পুত্রের অবস্থা আশংকা জনক বলে ডাক্তাররা জানান।

এদিকে এঘটনায় মহি উদ্দিন বাদী হয়ে মহেশখালী থানায় একটি এজাহার দায়ের করে। উক্ত অভিযোগ নিষ্পতির জন্য মহেশখালী থানার ওসি হোয়ানক পুলিশ ফাড়ির এস আই আব্দুল মালেক কে নির্দেশ দেয়। এস আই মালেক নোটিশ দিয়ে নিয়মিত বৈঠকের আয়োজন করলে ছৈয়দ নুর গংরা থানায় উপস্থিত হয়নি বলে জানান ওই কর্মর্কতা।অপর দিকে থানায় অভিযোগ করায় কামাল পাশা গংদের প্রাণ নাশের হুমকি দিচ্ছে ছৈয়দনুর গংরা।